ক্রেতাকে নকল ইলিশ দিয়ে দেদারছে পকেট ভরছে মাছওয়ালা।হচ্ছে ইলিশের স্বপ্নভঙ্গ। না-চিনে কিনছেনও অনেকে। ফরমালিন নামক একটি কেমিক্যাল মিশিয়ে এমনই লোক ঠকানোর কারবার শুরু করেছেন বহু অসাধু ব্যবসায়ী। খানিকটা ইলিশের মতোই দেখতে সার্ডিন বা চন্দনা মাছ। একসময় সার্ডিনিয়া দ্বীপের ধারে এই মাছ প্রচুর পাওয়া যেত বলে নাম সার্ডিন। আপনি যদি ঠিক না চেনেন, তাহলে অসাধু মাছ বিক্রেতা আপনাকে ইলিশ বলেই ঠকিয়ে দেবে। শুধু এরাজ্যেই নয়, মিথ্যের বেসাতি শুরু হয়েছে ইলিশের ‘পীঠস্থান’ পদ্মাপাড়েও। হ্যাঁ, বাংলাদেশেও ইলিশের নামে সার্ডিন বিক্রি করে চলছে ঠকানোর কারবার।

দেখে নেওয়া যাক সার্ডিন ও ইলিশ চেনার উপায়:

* সার্ডিনের দেহ পার্শ্বীয়ভাবে পুরু এবং পিঠের দিকের চেয়ে পেটের দিক অপেক্ষাকৃত উত্তল ও চ্যাপ্টা।

* ইলিশের দেহ পার্শ্বীয়ভাবে পুরু, পিঠের ও পেটের দিক প্রায় সমভাবে উত্তল।

* সার্ডিনের দৈর্ঘ্য সাত সেন্টিমিটার থেকে ২০ সেন্টিমিটার পর্যন্ত হয়ে থাকে। ইলিশ বেশ বড় (৭৫ সেন্টিমিটার পর্যন্ত) হয়ে থাকে।

* সার্ডিনের মাথার আকৃতি ছোট ও অগ্রভাগ ভোঁতা। ইলিশের মাথার আকৃতি লম্বাটে ও অগ্রভাগ সূচালো।

* সার্ডিনের পৃষ্ঠীয় পাখনার অগ্রভাগে এবং পুচ্ছ পাখনার কিনারা ঘোলাটে। ইলিশের পৃষ্ঠীয় পাখনার অগ্রভাগে এবং পুচ্ছ পাখনার কিনারা অনেকটা ফ্যাকাশে।

* সার্ডিনের চোখের আকৃতি তুলনামূলকভাবে বড়। আসল ইলিশের চোখের আকৃতি তুলনামূলকভাবে ছোট।